,

মুক্তা রাণী রায়-কে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন

“ফিরে পেতে তার হাসি”

পৃথিবীর নিয়তি আর পরিণতি কতো নিষ্ঠুর! ঈশ্বর,ভগবান,আল্লাহ যাই বলেন না কেন মানুষ সৃষ্টির কারিগর তো এনারাই।জীবন দান আর জীবন নেওয়া সৃষ্টিকর্তার দায়িত্ব। জন্ম মৃত্যুর এই নিয়ম থেকে মানব জাতির আলাদা হবার কোন সুযোগ নেই। জন্মের পর থেকেই মানুষের জীবন শুরু হয় এবং এই জীবনের দম শেষ হয় একটি নির্দিষ্ট সময় শেষে। কিন্তু সুন্দরময় এই পৃথিবীতে যাদের দায়িত্ব পালনের সুযোগ অনেক বাকি থাকা সত্ত্বেও খুব সল্প সময়ে এই জগতের আলো ত্যাগ করে চিরবিদায়ের লাইনে দাড়াতে হয় তাদের জন্য বিধাতার করা এই বিচার মেনে নিতে একজন মানুষ হিসাবে বড়ই কষ্ট হয়।

নিরব কান্নায় আর্তনাদ,অসহ্য বেদনা বাড়বে তখন যখন শুনবেন চোখের সামনে ফুটফুটে প্রাণবন্ত এক সুন্দর অপরিপক্ষ জীবন এই জগতের সবাইকে ছেড়ে অপারের সিমানায় পাড়ি জমানোর জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের হেমাটোলজি বিভাগের নার্সেস কেবিনের বিছানায় শুয়ে সকল চঞ্চলতা থেকে চেপে রেখে ভেজা নয়নে মলিন হয়ে আছে। আমি যার কথা বলছি সে মুক্তা রানি রায়।স্বপ্ন আর অদম্য সাহসিকতা ছিল বলে একজন দক্ষ সেবিকা হওয়ার ইচ্ছা মনের মধ্যে ধারন করে বলেই রংপুর নার্সিং কলেজে বিএসসি ইন নার্সিং এ অধ্যায়ন করার সুযোগ পাই। কিন্তু টানা ৪ বছর ধরে শিক্ষা নেওয়ার শেষ দিকে এসে ঈশ্বরের কাছে জীবন যুদ্ধের অন্তিম পরীক্ষায় বসতে হচ্ছে তাকে। আর কিছুদিন পরেই যাকে কিনা সাদা পোশাক এবং এপ্রোন পরে জীবন বাচানোর দায়িত্ব নিয়ে হাজার হাজার অসহায় রোগীর পাশে থেকে সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করার কথা সেই তাকেই কিনা অজানা কারনে Acute Myeloid Leukaemia (ব্লাড ক্যান্সার) রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালের সাদা বিছানায় শুয়ে জীবনের বড় বড় স্বপ্নকে দাউ দাউ অনলে পোড়াতে হচ্ছে।নয়নের জলে সে আগুন কিছুতেই থামছে না।

চিকিৎসা বিজ্ঞানে ব্লাড ক্যান্সার ভালো করার সমাধান আছে তবে তার জন্য প্রয়োজন উন্নত চিকিৎসা।চিকিৎসকরা বলেছেন সকল পরীক্ষা নিরীক্ষা করে দেখা গেছে মুক্তার দেহের সকল সেল(কোষ) ধীরে ধীরে মৃত হয়ে যাচ্ছে দ্রুত এর চিকিৎসা দরকার। জঠিল এই চিকিৎসার জন্য প্রয়োজন ৫০-৬০ লাখ টাকা।বিপুল পরিমান অর্থের যোগান পরিবারের একার পক্ষে দেওয়া কখনই সম্ভব না। তাই মুক্তা দেশ বিদেশের বিত্তবান এবং সকল শ্রেণী মানুষের কাছে সাহায্যের আবেদন জানিয়েছে। কারন সে বাঁচতে চাই,ফিরে আসতে চাই স্বাভাবিক জীবনে এবং দেশের অসহায় সেবা বঞ্চিত মানুষের পাশে থেকে নিঃস্বার্থ ভাবে সেবা দিতে চাই। মলিনতার ছাঁপ কাটিয়ে সে হাঁসতে চাই আমরাও তার মুখে হাসি ফিরে পেতে চাই।

মুক্তা রানি রায় কে আর্থিক সাহায্য পাঠাবেন যেভাবেঃ-
অঞ্জন কুমার রায়(মামা)
একাউন্ট নংঃ- ০২৩৩৪০০১৯৩৫(ব্যাংক এশিয়া)
বিকাশ নংঃ- ০১৯১১-১৭৪৪৯৮ (পার্সোনাল)
বিকাশ নংঃ- ০১৮৪৮-০৯৪৬০৯ (পার্সোনাল)
সর্বক্ষণ যোগাযোগের জন্যঃ-

মুক্তার জন্য ফেইজবুক ইভেন্টঃhttps://www.facebook.com/events/1004537456284625/

মুক্তার নিয়ে তৈরি একটি ডকুমেন্টারি ভিডিওঃ 

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

আরও অন্যান্য সংবাদ


টুইটর




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com