সোমবার, ২১ মে ২০১৮, ০১:৩৭ পূর্বাহ্ন

আজকের সেহরী ও ইফতার :
আজ ২০ মে রবিবার, রমজান- ৩, সেহরী : ৩-৪৪ মিনিট, ইফতার : ৬-৪০ মিনিট, ডাউনলোড করে নিতে পারেন পুরো ফিচার- ডাউনলোড


লক্ষ্মীপুরে বাড়ছে ধর্ষণের ঘটনা, কমছেনা নির্যাতনও

লক্ষ্মীপুরে বাড়ছে ধর্ষণের ঘটনা, কমছেনা নির্যাতনও



 

কিশোর কুমার দত্ত, লক্ষ্মীপুর:
লক্ষ্মীপুরে হু হু করে বেড়ে চলছে ধর্ষণ আর কমছেনা নির্যাতনের ঘটনাও। একের পর এক এসব ঘটনার শিকার হয়ে গত এক বছরে জেলার শিশুসহ নারী ধর্ষণ ও নির্যাতনের শিকার হয়েছে প্রায় শতাধিক। এসব ঘটনায় মামলা হলেও গ্রেপ্তার হয়নি বেশিরভাগ আসামী। নিরাপত্তা হীনতায় ও উদ্বেগ-উৎকন্ঠায় রয়েছে সাধারন মানুষ। জড়িতদের গ্রেপ্তারের দাবীতে নানান কর্মসুচি পালন করেছেন, বিভিন্ন সংগঠনসহ শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও স্থানীয় এলাকাবাসী। তবে পুলিশের দাবী ঘটনার সাথে জড়িত মুল আসামীদের গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। অন্যদের গ্রেপ্তারের অভিযান চলছে। অন্যদিকে নৈতিক শিক্ষা, সামাজিক ও ধর্মীয় মুল্যবৈধের অভাবকে দায়ী করছেন সচেতন মহল।

পুলিশ সুপার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, গত এক বছরে লক্ষ্মীপুরে যৌতুকের দাবীতে নির্যাতনের শিকার হয়ে মুত্যু হয়েছে ৩০জনের। ধর্ষণ, যৌন নিপীড়ন ও অপহরনের ঘটনা ঘটেছে প্রায় শতাধিক, আর শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়েছে অধশতাধিক। এর বাহিরেও রয়েছে অনেক ঘটনা। এসব ঘটনায় মামলা হলেও গ্রেপ্তার হয়নি বেশিরভাগ আসামী। জড়িতদের গ্রেপ্তারের দাবীতে নানান কর্মসুচি পালন করা হলোও বাস্তবে তার প্রতিফলন হয়না। এতে করে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে অভিভাবক সহ সাধারন মানুষ।

সূত্র জানায়, চলতি বছরের (১২) মার্চ রাতে আশ্রয় দেওয়ার কথা বলে লক্ষ্মীপুর শহরের পৌর শহীদ স্মৃতি হাইস্কুল সড়কের মনোয়ারা ম্যানশনে ফেরদৌসের ভাড়া বাসায় ৬মাসের অন্তস্বত্ত্বা এক গৃহবধুকে দলবেঁধে ধর্ষণ করা হয় বলে জানান ভিকটিম ওই নারী। (২৬) মার্চ জেলার রামগঞ্জ উপজেলার নোয়াগাঁও এলাকার ৮ বছরের শিশু নুসরাত জাহান নামের এক স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ শেষে হত্যা করে লাশ বস্তাবন্দী করে ফেলে দেওয়া হয়। ঘটনার ৩দিন পর একই উপজেলার কাঞ্চনপুর এলাকার বিজ্রের নিচ থেকে তার বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে নিহত শিশুর মা বাদী হয়ে রামগঞ্জ থানায় কয়েকজনকে অজ্ঞাত আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এরপর ধরা পড়ে মূল হত্যাকারী শাহ আলম রুবেল ও বোরহান উদ্দিন। (২৭) মার্চ বিকালে সদর উপজেলার বশিকপুর ইউনিয়নের রশিদপুর গ্রামে নিজ বাড়ি থেকে জোরপূবৃক তুলে নিয়ে ষষ্ট শ্রেনীর স্কুল ছাত্রীকে গনধর্ষন করে এলাকার মুকবুল ও দুলাল নামে দুই বখাটে। পরে ধর্ষনের ভিডিও চিত্র ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার কথা ও হত্যার হমুকি দেয় তারা। এ ঘটনায় মামলা হলে পুলিশ দুলালকে গ্রেপ্তার করলেও প্রধান আসামী মুবকুল ধরা-ছোয়ারে বাহিরে রয়েছে। (০২) এপ্রিল সদর উপজেলার পশ্চিম চরমনসা এলাকা একটি ইসলামীক শিক্ষাকেন্দ্রে শিক্ষকের হাতে ধর্ষনের শিকার হন তৃতীয় শ্রেনীর একছাত্রী সহ প্রায় অর্ধশতাধিক। এর বাহিরেও রয়েছে আরো অনেক ঘটনা। কিন্তু অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না হওয়ায় নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতা বাড়ছে বলে মনে করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

লক্ষ্মীপুর বিসিক শিল্পনগরী এলাকার ইসমাইল হোসেন জবুসহ কয়েকজন অভিভাবক নববার্তাকে জানান, প্রতিনিয়ত যে হারে ধর্ষণ, নারী নির্যাতনের ঘটনা ঘটছে তা নিয়ে উদ্বেগ-উৎকন্ঠায় থাকেন তারা।

লক্ষ্মীপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি কামাল হাওলাদার নববার্তাকে জানান, ধর্ষন ও নির্যাতনের ঘটনাগুলোর উপযুক্ত বিচার না হওয়া দিনদিন বাড়ছে। তবে এসব ঘটনার বিচার কাজ দ্রুত করার দাবী জানান তিনি।

জেলার পদ্দকলি মহিলা উন্নায়ণ সংস্থার নারী নেত্রী মমতাজ বেগম জানান, যে হারে নির্যাতন, শিশুসহ নারী ধর্ষন বাড়ছে তা মঙ্গলজনক নয়। তবে প্রসাশনকে আরো কঠোর এবং অপরাধীদের শাস্তি নিশ্চিত করা গেলে এমন নরকীয় ঘটনা বন্ধ হবে বলে মনে করেন এ নারী নেত্রী।

লক্ষ্মীপুর সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যক্ষ মাইনউদ্দিন পাঠান নববার্তাকে জানান, নৈতিক শিক্ষার অভাব, সামাজিক মূল্যবোধ এবং ধর্মীয় মূল্যবোধের অভাব থাকায় আজ ধর্ষন ও নির্যাতন হচ্ছেন বলে মনে করেন তিনি।
লক্ষ্মীপুরের পুলিশ সুপার আ স ম মাহাতাব উদ্দিন বলেন, এসব ঘটনায় জড়িত মুল আসামীদের গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। অন্যদের গ্রেপ্তারের অভিযান চলছে। অপরাধী যত বড়ই হোক, কাউকে ছাড় দেয়া হবেনা বলে হুশিয়ারী দেন পুলিশের এ কর্মকর্তা।

ধর্ষণসহ নারী নির্যাতনের মত ঘটনায় আইনের আওতায় এনে দ্রুত বিচারের দাবী করেন অভিভাবক ও সাধারণ মানুষ।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

Please Share This Post in Your Social Media








© 2018 Nobobarta । Privacy PolicyAbout usContact DMCA.com Protection Status
Design & Developed BY Nobobarta.com