সোমবার, ২১ মে ২০১৮, ০১:১৮ পূর্বাহ্ন

আজকের সেহরী ও ইফতার :
আজ ২০ মে রবিবার, রমজান- ৩, সেহরী : ৩-৪৪ মিনিট, ইফতার : ৬-৪০ মিনিট, ডাউনলোড করে নিতে পারেন পুরো ফিচার- ডাউনলোড


লক্ষ্মীপুরে টানা বৃষ্টিতে নষ্ট হচ্ছে প্রায় ৫০ কোটি টাকার সয়াবিন

লক্ষ্মীপুরে টানা বৃষ্টিতে নষ্ট হচ্ছে প্রায় ৫০ কোটি টাকার সয়াবিন



 

কিশোর কুমার দত্ত, লক্ষ্মীপুর:
দীর্ঘ অপেক্ষা শেষে সপ্তাহ খানিক পর মাঠের সয়াবিন ঘরে তুলতে প্রস্তুুতি নিচ্ছিল কৃষকরা। কিন্তু এরই মধ্যে গত কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে লক্ষ্মীপুরে পাকা সয়াবিনের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ইতিমধ্যে প্রায় ৫০ কোটি টাকার সয়াবিন ক্ষেতে পচে দূগন্ধে ছড়াচ্ছে। এতে করে নষ্ট হচ্ছে পরিবেশ। সোনার ফসল ঘরে তুলতে না পারায় ঋনের টাকা নিয়ে দুচিন্তায় ও হতাশ হয়ে পড়েছেন সয়াবিন চাষীরা। তবে আর যদি বৃষ্টি না হয় তাহলে ক্ষতির পরিমান কমবে এবং বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে আরো ক্ষতির পরিমান বাড়ার আশংকা করছেন কৃষিবিভাগ।

জানা যায়, ১৯৮৪ সালে জেলার রায়পুর উপজেলার হায়দরগঞ্জ এলাকায় পরীক্ষা মুলকভাবে শুরু হয় সয়াবিন চাষ। উৎপাদন খরচের তুলনায় বেশী লাভ হওয়ায় জেলার অধিকাংশ চাষীরা সয়াবিন চাষে আগ্রহী হয়ে উঠে। চলতি বছরেও এ অঞ্চলে সয়াবিনের বাম্পার ফলন হলেও গত কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে লক্ষ্মীপুর-সদর, রামগতি, কমলনগর ও রায়পুর উপজেলার চরাঞ্চলের প্রায় ৬শ’ হেক্টর সয়াবিন ক্ষেত পানিতে ডুবে পচে গেছে। সয়াবিন পচা দুর্গন্ধে নষ্ট হচ্ছে পরিবেশ। ঋনের বোঝা মাথায় নিয়ে কিভাবে সামনের দিন কাটবে সে দুঃচিন্তায় পড়েছেন সয়াবিন চাষীরা। ইতিমধ্যে প্রায় ৬শ’ হেক্টর সয়াবিন ক্ষেত পানিতে ডুবে পচে গেছে। যার বাজার মূল্যে ৩৮ কোটি টাকা। কিন্তু ক্ষতির পরিমান আরো বাড়ার আশংকা করছেন জেলা কৃষি বিভাগ।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, দেশের উৎপাদিত সয়াবিনের ৮০ ভাগ উৎপাদন হয় এ জেলায়। সয়াবিন চাষের সাথে জড়িত রযেছে প্রায় ৭০ হাজার কৃষক। চলতি বছরে জেলায় সয়াবিনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয় ৫০ হাজার ৫শত ৭৫ হেক্টর। লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়েছে ৪১ হাজার ২শ’ ৭০ হেক্টর। গত বছরের তুলনায় ৯ হাজার হেক্টর কম। উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়েছে ১ লাখ ১০ হাজার মেট্রিকটন। যার বাজার মূল্যে প্রায় ৭শ কোটি টাকা।

সয়াবিন চাষীরা জানান, গত কয়েক দিনের টানা বৃষ্টিতে পাকা সয়াবিন ক্ষেতে পচে যাচ্ছে। ফসল তুলতে পারছেনা চাষীরা। সয়াবিনের পচা দূগন্ধে বাসাবাড়ি ও রাস্তা দিয়ে চলাচল করা যাচ্ছেনা। স্বপ্নের সয়াবিন ঘরে তুলতে না পারায় পরিবার পরিজন নিয়ে কিভাবে দিন কাটাবে সে দুঃচিন্তায় আছে সয়াবিন চাষীরা। ঋনের টাকা নিয়ে দুচিন্তায় ও হতাশা হয়ে পড়েছেন তারা। গত বছরের টানা বৃষ্টির কারনেও লোকসানের মৃুখে পড়তে হয়েছে চাষীদের। তাদের অভিযোগ, খাল বিল সংস্কার না করায় বৃষ্টির পানি জমে তাদের অপুরনীয় ক্ষতি হচ্ছে।

লক্ষ্মীপুর কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক বেলাল হোসেন খাঁন জানান, টানা বৃষ্টির কারণে ইতিমধ্যে ৩৮ কোটি টাকার সয়াবিন নষ্ট হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে হিসেব করা হচ্ছে। এভাবে বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে আরো ক্ষতির পরিমান বাড়বে বলে আশংকা করছেন কৃষি বিভাগ। তবে ক্ষতি ফুসিয়ে নিতে কৃষকদের নানান পরামর্শ দেয়া হচ্ছে বলে জানালেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের এ কর্মকর্ত।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

Please Share This Post in Your Social Media








© 2018 Nobobarta । Privacy PolicyAbout usContact DMCA.com Protection Status
Design & Developed BY Nobobarta.com