আজ বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৩:২১ অপরাহ্ন

২৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ৫ই রবিউস-সানি, ১৪৪০ হিজরী
National Election
হুমকি মোকাবেলায় সেনাবাহিনীকে প্রস্তুত থাকতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

হুমকি মোকাবেলায় সেনাবাহিনীকে প্রস্তুত থাকতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, কোন অশুভ ও স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি যেন দেশের অগ্রযাত্রাকে ব্যাহত করতে না পারে সেজন্য সকলকে সজাগ থাকতে হবে।

দেশের গণতান্ত্রিক ও সাংবিধানিক ধারা অব্যাহত রাখার পাশাপাশি আধুনিক, উন্নত ও সুখী সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণে সেনাবাহিনীকে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে হবে। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে এগিয়ে যাবে। দেশ ও আন্তজার্তিক নানা দুর্যোগে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী তাদের কর্মদক্ষতার স্বাক্ষর রেখে অনন্য দৃষ্ট্রান্ত স্থাপন করেছেন। তারা তাদের একাগ্রতা কর্মদক্ষতা ও নানাবিধ জনসেবামূলক কর্মকাণ্ডের জন্য সার্বজনীন আস্থা ও গ্রহণযোগ্যতা অর্জন করেছে। বর্তমান সরকার সেনাবাহিনীকে আরো সমৃদ্ধ করতে নানাবিধ পদক্ষেপ নিয়েছে।

তিনি আজ বৃহস্পতিবার নাটোরের কাদিরাবাদ সেনানিবাসে সেনাবাহীনির ইঞ্জিনিয়ার কোরের ৬ষ্ঠ পুনর্মিলনী ও অধিনায়ক সম্মেলন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন। পবিত্র সংবিধান এবং দেশের সার্বভৌমত্ব সুরক্ষায় আপনাদের ঐক্যবদ্ধ থেকে অভ্যন্তরীণ ও বাহ্যিক যেকোন হুমকি মোকাবেলায় সর্বদা প্রস্তুত থাকতে হবে। সেনাবাহিনী তারা তাদের একাগ্রতা কর্মদক্ষতা ও নানাবিধ জনসেবামূলক কর্মকাণ্ডের জন্য সার্বজনীন আস্থা ও গ্রহণযোগ্যতা অর্জন করেছে। জাতিসংঘ মিশন ও মিয়ানমার প্রসঙ্গ টেনে তিনি সেনাবাহিনীর বিভিন্ন কর্মকান্ড বিশ্বে তাদের ভাবমূর্তি উজ্জল করেছে বলে উল্লেখ করেন। এছাড়া দেশের যেকোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও দুর্ঘটনায় দূর্গতদের সাহায্য ও সহযোগিতা করে সশস্ত্র বাহিনী অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

প্রধানমন্ত্রী সেনাবাহিনীর সাথে তাদের পারিবারিক সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে বলেন, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সঙ্গে আমাদের রয়েছে সুদৃঢ় সম্পর্ক। আমার দুই ভাই সোনবাহিনীতে অন্তর্ভুক্ত ছিল ছোট ভাই রাসেলেরও বড়হয়ে সেনাবাহিনীতে যোগ দেয়ার ইচ্ছা ছিল। কিন্তু ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট ঘাতকরা সবাইকে নির্মম ভাবে হত্যা করে। আপনাদের মাঝে আমি আমার হারানো ভাইদের খুঁজে পাই। পরে তিনি সেনাবাহিনীতে কোর অব ইঞ্জিনিয়ার্সের বিভিন্ন অবদানের কথা তুলে ধরেন। কোন অশুভ ও স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি যেন দেশের অগ্রযাত্রাকে ব্যাহত করতে না পারে সেজন্য সকলকে সজাগ থাকার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে দেশ মধ্যম আয়ের ও ২০৪১ সালের আগেই উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশে পরিণত হবে।

এর আগে বৃহস্পতিবার নাটোরের কাদিরাবাদ সেনানিবাসে সেনাবাহীনির ইঞ্জিনিয়ার কোরের ৬ষ্ঠ পুনর্মিলনী ও অধিনায়ক সম্মেলন অনুষ্ঠানে পৌছলে তাকে প্রথমে গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়। পরে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সেনা প্রধান জেনারেল আবু বেলাল মোহম্মদ শফিউল হক,প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা উপদেষ্টা মেজর জেনারেল ( অবঃ) তারিক আহম্মেদ সিদ্দিক, নৌ বাহিনীর প্রধান এডমিরাল নিজাম উদ্দিন আহমেদ ও বিমান বাহিনীর প্রধান এয়ার চীফ মার্শাল আবু এসরার।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে সংসদ সদস্য,উদ্ধতন সামরিক ও অসামরিক কর্মকর্তাবৃন্দ সহ ইঞ্জিনিয়ার সেন্টার এন্ড স্কুল অব মিলিটারী ইঞ্জিনিয়ারিং এর অবসরপ্রাপ্ত ও চাকুরিরত কর্মকর্তা এবং অন্যান্য পদবীর সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। পরে তিনি কুচাকওয়াজ ও সালাম গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে তিনি বেলা ১১ টার দিকে আকাশ পথে ঢাকা থেকে নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার দয়ারামপুরের কাদিরাবাদ সেনানিবাসে এসে উপস্থিত হন। অনুষ্ঠান শেষে তিনি দলীয় জনসমাবেশ ও বিভিন্ন উন্নয়ন কাজের উদ্বোধনের জন্য হেলিকপ্টার যোগে রাজশাহীর উদ্দেশে যাত্রা করেন।

লাইক দিন

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Nobobarta on Twitter

© 2018 Nobobarta । Privacy PolicyAbout usContact DMCA.com Protection Status
Design & Developed BY Nobobarta.com