তরুণরাই পারে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে : শিরীন শারমিন চৌধুরী - Nobobarta.com

তরুণরাই পারে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে : শিরীন শারমিন চৌধুরী

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, তরুণরাই এগিয়ে যাওয়ার শক্তি। তরুণদের মেধা,দক্ষতা ও সক্ষমতা কাজে লাগিয়ে আমরা গড়ে তুলতে পারি ডিজিটাল বাংলাদেশ। জ্ঞানভিত্তিক, প্রযুক্তি নির্ভর মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হতে প্রযুক্তির সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। তিনি মঙ্গলবার ঢাকার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে “সবার জন্য নিরাপদ ইন্টারনেট” শ্লোগানে তথ্য ও যোগাযোগ বিভাগের আয়োজনে “জাতীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি দিবস -২০১৭” উদযাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন।

এ সময় তিনি প্রথমবারের মতো উদযাপিত “জাতীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি দিবস -২০১৭” এর শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করেন। স্পিকার বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সূদুর প্রসারী ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বে ২০০৮ সালের ১২ ডিসেম্বর ঘোষিত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে ভিশন-২০২১ এর আওতায় “ডিজিটাল বাংলাদেশ’’ গঠনের রূপরেখা প্রণয়ন করা হয়। তারই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশের জনগণ তথ্য প্রযুক্তির মহাসড়কে অবস্থান করছে। তথ্য প্রযুক্তি আমাদের জীবনে আজ গভীরভাবে প্রভাব রাখছে।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগোযাগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় ডিজিটাল গভর্নমেন্ট, হিউম্যান রিসোর্স ডেভেলপমেন্ট, কানেক্টিভটি ও ইন্ডাষ্ট্রি প্রমোশন-এ চারটি পিলারের ওপর ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন। এর সুফল জনগণ পেতে শুরু করেছে। পৃথিবী দ্রুত বদলে যাচ্ছে উল্লেখ করে স্পিকার বলেন, এ পরিবর্তন আমাদের যুক্ত করছে নতুন পৃথিবীর সাথে। ইতোমধ্যে ৪ হাজার ৫শ’টি ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার, ২ হাজার ১টি বিদ্যালয়ে শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব,৭টি শেখ কামাল আইসিটি ট্রেনিং সেন্টার, ২৮টি হাইটেক পার্ক স্থাপন করেছে সরকার।

আইসিটি বিভাগের মাধ্যমে তিন বছরে ৩ লক্ষ তরুণকে প্রশিক্ষণের আওতায় আনা হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, হাইটেক পার্কসমূহে ২০ লাখ নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। এছাড়া ২২৯ কোটি টাকা ব্যয়ে বাস্তবায়িত হতে যাচ্ছে আইডিয়া প্রকল্প। অনুষ্ঠানে দেশের তথ্য প্রযুক্তি খাতের প্রসারে বিশেষ অবদান রাখায় ১২ টি ক্যাটাগরিতে ১৫ জনকে “ন্যাশনাল আইসিটি এ্যাওয়ার্ড-২০১৭” প্রদান করেন স্পিকার। এর মধ্যে শিক্ষাবিদ প্রফেসর ড. মুহাম্মাদ জাফর ইকবাল, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ফরিদউদ্দিন, বিডি নিউজ টুয়েন্টিফোর ডট কমের তৌফিক ইমরোজ খালিদি, ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক উম্মে সালমা তানজিয়া ও সিটি ব্যাংক উল্লেখযোগ্য। মরণোত্তর পুরস্কার দেয়া হয় ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের সফল মেয়র আনিসুল হককে। আনিসুল হকের পক্ষে তার কন্যাদ্বয় পুরস্কার গ্রহণ করেন।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ ও তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি ইমরান আহমদ ও তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব সুবির কিশোর চৌধুরী।

খবর-বাসস।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

আরও অন্যান্য সংবাদ




টুইটর




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com