,

মন্ত্রী হচ্ছেন মহিউদ্দিন, দীপু, রাজ্জাক!

আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকারের দ্বিতীয় বছরে এসে তৃতীয় দফায় সম্প্রসারণ করা হচ্ছে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন মন্ত্রীসভার। এই যাত্রায় মন্ত্রীসভায় অন্তর্ভূক্ত হচ্ছেন চট্টগ্রামের সাবেক মেয়র ও নগর অাওয়ামী লীগের সভাপতি এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী। পাশাপাশি আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনিও মন্ত্রী সভায় যুক্ত হবেন। এছাড়া সাবেক পরিবেশ মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ও সাবেক খাদ্য মন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাকের নামও শুনা যাচ্ছে।

আগামী সপ্তাহের শুরুতেই মন্ত্রী সভার এই সম্প্রসারণ কাজ শুরু হবে। এ বিষয়ে সরকারের শীর্ষ পর্যায়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। সচিবালয়ের নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র ও মহিউদ্দিন চৌধুরী ঘনিষ্ট সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করলেও কেউই এ বিষয়ে মন্তব্য প্রকাশ করতে রাজি হননি। বলা হচ্ছে, গত মেয়র নির্বাচনে নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিনকে দলের মনোনয়ন ছেড়ে দেওয়ার পরও শারীরিক অসুস্থার মধ্যেও দলীয় কার্যক্রমে অংশ নেয়ায় প্রধানমন্ত্রী ও দলীয় প্রধান তার ওপর সন্তুষ্ট। এছাড়া চট্টগ্রামে মহিউদ্দিন চৌধুরীর অতীত রাজনীতি এবং ত্যাগের বিষয়টিও বিবেচনায় রাখা হচ্ছে।

জানতে চাইলে এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী বুধবার রাতে বলেন, ‘আই ডোন্ট নো। সেটি আপনারা এবং প্রধানমন্ত্রীই ভালো বলতে পাবেন। আমার কোনও চাকুরি নেই। আমি বুড়ো হয়ে গেছি। এখন শুধু দলের জন্য কাজ করি। নেত্রী কি সিদ্ধান্ত নেন সেটি উনার বিষয়। তবে মন্ত্রী হচ্ছি কি হচ্ছি না সেটি আমার জানা নেই।’ তবে তার ঘনিষ্ট দুইজন নেতার সঙ্গে আলাপকালেও মহিউদ্দিনের মন্ত্রী হওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছেন। ১৯৪৪ সালের ১ ডিসেম্বর রাউজানের গহিরায় মরহুম হোসেন আহমেদ চৌধুরী ও মরহুমা বেধুরা বেগমের ঘর আলোকিত করে জন্ম নেন চট্টলার অবিসংবাদিত মহিউদ্দিন চৌধুরী। চার ভাইয়ের মধ্যে মহিউদ্দিনের অবস্থান দ্বিতীয়।

মহিউদ্দিন ছাত্রজীবন থেকেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। পরবর্তীতে শ্রমিক লীগের রাজনীতি করে এক পর্যায়ে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের কান্ডারি হন মহিউদ্দিন। মহান মুক্তিযুদ্ধের বীর সেনানি মহিউদ্দিনের রয়েছে মুক্তিযুদ্ধকালে গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা। দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অটল থাকতে গিয়ে সামরিক শাসনসহ বিভিন্ন সময়ে মহিউদ্দিনকে কারাবরণ করতে হয়েছিল।

স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলন, চট্টগ্রাম বন্দর রক্ষা আন্দোলন, অসহযোগ আন্দোলনে চট্টগ্রামে নেতৃত্ব দেয়া মহিউদ্দিন এখনও সক্রিয় আছেন রাজপথে। জামায়াত ইসলামী হরতাল ডাকলে এখনও মহিউদ্দিন নিজের অনুসারী নেতাকর্মীদের নিয়ে নগরীতে হরতাল প্রতিরোধে নেমে যান। চট্টগ্রামের গণমানুষের এই নেতা টানা ১৭ বছর চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমানে তিনি চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের দায়িত্ব পালন করছেন।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

আরও অন্যান্য সংবাদ


Nobobarta on Twitter




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com