,

সারাদেশে বজ্রপাতে ৩৫ জন নিহত

সারাদেশে বজ্রপাতে ৩৫ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। সিরাজগঞ্জে ৫ জন, কিশোরগঞ্জে ৪জন, পাবনা ৬, নরসিংদীতে ৩জন রাজশাহীতে ৩ জন, রাজধানীতে ২ জন, নাটোরে ২ জন, গাজীপুরে ২জন ও পিরোজপুর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, নীলফামারী, হবিগঞ্জ, বগুড়া, নওগাঁ, দিনাজপুর ও নেত্রকোনায় একজন করে মারা গেছেন।

ঢাকা ২ : রাজধানীর ডেমরার কাঠেরপুল এলাকায় ফুটবল খেলার সময় বজ্রপাতে শাহেদ সোহাগ (২১) ও তাহসিন লিংকন (২৩) নামে দুই যুবকের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় রায়হান নামে আরো একজন আহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে। মৃত দুইজন ছাত্র বলে জানা গেছে।

সিরাজগঞ্জ ৫ : সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ ও উল্লাপাড়া উপজেলার পৃথক স্থানে বজ্রপাতে শিশু সহ ৫ জন নিহত হয়েছে। এ সময় ২টি গরুও মারা যায়। নিহতরা হলেন- রায়গঞ্জ উপজেলার চকপুর গ্রামের নুর নবীর শিশু কন্যা নুপুর খাতুন (৮) ও বৈকণ্ঠপুর গ্রামের দারুজ্জামানের ছেলে আব্দুল মোতালেব (৪২), একই উপজেলার বেতগাতী গ্রামের বাসিন্দা এবং রায়গঞ্জের হাসিল মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক আনোয়ার হোসেন (৪৫), উল্লাপাড়া উপজেলার শিমলা গ্রামের আব্দুল লতিফ (৩৫) ও বেতুয়া গ্রামের গৃহবধু শাহিনুর বেগম (৩০)। স্থানীয় পাঙ্গাসী ইউনিয়নের মেম্বার মাহে আলম জানান, বৃহস্পতিবার বিকেলে নুপুর বাড়ির পাশে ইট ভাটার কাছে খড়ি কুড়াচ্ছিল। এ সময় বজ্রসহ বৃষ্টিপাত শুরু হয়। আকস্মিক একটি বজ্র তার উপর পড়লে ঘটনাস্থলেই সে নিহত হয়। অপরদিকে একই সময়ে মোতালেব গ্রামের মাঠে গরু আনতে যায়। বজ্রপাতে সে ঘটনাস্থলেই মারা যায়। এ সময় তার ২টি গরুও মারা যায়। পরে এলাকাবাসী তাদের উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে আসে। এ দুটি ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। এ ছাড়াও বিকেলে হাসিল মাদ্রাসার শিক্ষক আনোয়ার হোসেন বাড়ি ফেরার পথে মাদ্রাসার মাঠে বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই মারা যান।

পিরোজপুর ১ : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় ভারী বর্ষণের সময় বজ্রাঘাতে ইউনুস সিকদার(৫৫) নামে এক কৃষক নিহত হয়েছেন। আজ বৃহস্পতিবার বিকাল চারটার দিকে উপজেলার দাউদখালী ইউনিয়নের বড় হারজী গ্রামে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এসময় নিহত কৃষক ইউনুসের ছোট ভাইয়ের স্ত্রী গৃহবধূ আয়েশা বেগম(৪৫) বজ্রাঘাতে গুরুতর আহত হন। তাঁকে আশংকাজনক অবস্থায় বরিশাল শেরে ই বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠাননো হয়েছে। নিহত কৃষক ই্উনুস উপজেলার বড় হারজী গ্রামের মৃত লাল মিয়া সিকদারের ছেলে। তিনি দুই সন্তানের জনক।

নীলফামারী ১ : নীলফামারী জেলার কিশোরগঞ্জ উপজেলার মাগুড়া ইউনিয়নের ফুলেরহাট গ্রামে বৃহস্পতিবার দুপুরে বজ্রপাতে লালবিবি (৪০) নামের এক গৃহবধুর মৃত্যু হয়েছে। নিহত লালবিবি ওই গ্রামের কৃষি শ্রমিক আলম হোসেনের স্ত্রী। মাগুড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাহমুদুল হোসেন জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে ভারী বৃষ্টিসহ বজ্রপাতের সময় লালবিবি নিজ বাড়ির একটি ঘরে সাংসারিক কাজ করছিলেন। এ সময় ঘরে বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

কিশোরগঞ্জ ৪ :  বজ্রপাতে কিশোরগঞ্জের চারজনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে বাজিতপুর উপজেলায় দু’জন, হোসেনপুর উপজেলায় একজন ও তাড়াইল উপজেলায় একজন মারা গেছেন। মৃতরা হলেন-বাজতিপুর উপজেলার পিরিজপুর ইউনিয়নের কাইকড়ি গ্রামের আবেু বক্করে স্ত্রী রিজিয়া বেগম (৫৬), দিলালপুর ইউনিয়নের বাহেরনগর এলাকার মঞ্জু মিয়ার ছেলে স্বপন মিয়া (২০), তাড়াইল উপজেলার জাওয়ার ইউনিয়নের আব্দুর কুদ্দুসের স্ত্রী মমতা বেগম (৪৫) ও হোসেনপুরের আড়াইবাড়িয়া গ্রামের রহমত আলীর ছেলে শরীফুল ইসলাম শুভ (১৮)। তিনি হোসেনপুর ডিগ্রি কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র।

রাজশাহী ৩ : রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলার ঘাষিগ্রাম ইউনিয়নে ব্রজপাতে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার দেুপুর দেড়টার দিকে পৃথক এ ঘটনা ঘটে। এ ছাড়া বজ্রপাতে আরো চারজন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে একজনের বাড়ি পার্শ্ববর্তী বাগমারায়। মৃতরা হলেন ওই ইউনিয়নের আতা নারায়ণপুর গ্রামের শামসুদ্দিনের ছেলে আব্দুর রাজ্জাক (২৮), হা্ততৈড় গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে আব্দুল আজিজ (৫০) এবং ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের শ্রী সৈত চন্দ্র (৩০)।  

হবিগঞ্জ ১ : হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার প্রতাপপুর হাওরে বজ্রপাতে হাবিব মিয়ার (২৫) মৃত্যু হয়েছে। নিহত হাবিব প্রতাপপুর গ্রামের শেখ তাজুল মিয়ার ছেলে। বৃহস্পতিবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে।

গাজীপুর ২: গাজীপুরের কাপাসিয়ায় বজ্রপাতে সাত্তার আলী (২৮) নামে এক দিনমজুর ও রুবি বেগম (৩৯) নামে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১২ মে) বিকেলে পৃথক দু’টি বজ্রপাতে তাদের মৃত্যু হয়। নিহত সাত্তার আলী কুঁড়িগ্রামের পচাকাটা থানার সাতানা এলাকার মো. ছানাউল্লাহ বেপারির ছেলে ও রুবি বেগম কাপাসিয়া উপজেলার সিঙ্গুয়া এলাকার কাজল মিয়ার স্ত্রী।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া ১ : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলায় আজ বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে বজ্রপাতে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। ওই তিনজন হলেন উপজেলার চরশিবপুর গ্রামের সফিকুল ইসলাম, ইছাপুর গ্রামের সামছুল ইসলাম ও কানাইনগর গ্রামের কবির হোসেন।

দিনাজপুর ১ : দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে বজ্রপাতে মঙ্গল মুর্মু (৫০) নামের এক ব্যাক্তি নিহত হয়েছেন। আজ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় উপজেলার বাসুদেবপুর আমপাড়া গ্রামের এ ঘটনা ঘটে। মঙ্গল মুর্মু বাসুবেদপুর গ্রামের মৃত: উমান মুর্মু ছেলে।

নেত্রকোনা ১ : নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলায় বৃহস্পতিবার দুপুরে বজ্রপাতে রুবেল মিয়া (২৫) নামের এক যুবক নিহত হয়েছে। সে উপজেলার বিশকাকুনী ইউনিয়নের ধোবারুহী গ্রামের আ. বারেকের ছেলে। এ সময় রুবেলের চাচি রেজিয়া আক্তার বজ্রপাতে আহত হন।

নাটোর ২: বিকেলে বজ্রপাতে নাটোরের লালপুর উপজেলার রঘুনাথপুর ও উত্তর লালপুর গ্রামে মোবারক হোসন (৩৫) ও সাহারা খাতুন (৪৮) নামে দু’জন মারা গেছেন। নিহত মোবারক হোসন উপজেলার রঘুনাথপুর গ্রামের মৃত মো. আলীর ছেলে এবং সাহারা খাতুন উত্তর লালপুর গ্রামের বান্টু আলী শেখের স্ত্রী। লালপুর থানার ওসি আব্দুল হাই জানান, মোবারকের নামে  একাধিক মামলা রয়েছে।

নওগাঁ ১: আত্রাইয়ে বজ্রপাতে জয়নাল উদ্দিন (৬৫) নামে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। কৃষক জয়নাল উদ্দিন উপজেলার বিষা উত্তর গ্রামের মৃত ব্যাঙ্গা প্রামাণিকের ছেলে।

বগুড়া ১ : শেরপুরে বজ্রপাতে  আনোয়ার হোসেন নামে একজন নিহত ও ছোটভাই আরিফুল ইসলাম গুরুতর আহত হয়েছে। আরিফুলকে প্রথমে শেরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলে সেখানে অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজে হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

পাবনা ৬ : পাবনার সুজানগর উপজেলার আমিনপুর থানায় পৃথক স্থানে বজ্রপাতের ঘটনায় ২ স্কুল ছাত্র-ছাত্রীসহ ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এরা হলো, আহম্মদপুর ইউনিয়নের দক্ষিণচর গ্রামের মৃত রইছ সরদারের ছেলে শহীদ সর্দার (৫৮), সোনাতলা গ্রামের ইউসুফ সেখ ওরফে এছো সেখ এর ছেলে ও বোয়ালিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণির ছাত্র হীরা (১৩) এবং রানীনগর ইউনিয়নের বাঘলপুর গ্রামের ময়েন সরদার (৬৫) এবং তার নাতনী মৃত শিরু সরদারের মেয়ে ও বাঘলপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী শিখা খাতুন (১৩)। অপরদিকে জেলার চাটমোহর উপজেলার পাশ্বডাঙ্গা ইউনিয়নের বাউদকান্দি গ্রামের মল্লিক পাড়ার ইমান প্রামানিকের ছেলে ফজলুর রহমান (৪০) এবং মৃত মহির খানের ছেলে ছকির উদ্দিন (৭০)  বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এঘটনা ঘটে।

নরসিংদী ৩ : নরসিংদী ও রায়পুরা উপজেলায় একই দিনে বজ্রপাতে ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। দুপুর ১টার দিকে নরসিংদী সদর উপজেলার মহিষাশুরু ইউনিয়নে মহিষাশুরা গ্রামে আব্দুল করিম (৫০) নামে এক কৃষক বজ্রপাতে মারা যান। একই সময় সদর উপজেলার নজরপুর ইউনিয়নের চম্পকনগর গ্রামে ফুলি বেগম (৩২) নামে এক গৃহবধূ বজ্রপাতে মারা যান। একইদিন দুপুরে রায়পুরা উপজেলার শ্রীনগর ইউনিয়নের ফকিরচর গ্রামে বজ্রপাতে নিহত হয়েছে জ্যোসনা বেগম (৩৮) নামে এক গৃহবধূ। 

কালেরকণ্ঠ

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

আরও অন্যান্য সংবাদ


টুইটর




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com