,

কবিতার ব্যাখ্যা

কবিতার ব্যাখ্যা হয় নাকি হয় না

 আজকাল একটা কথা অনেকেই বলেন- ‘কবিতার কোনো ব্যাখ্যা হয় না’। কবিতার ব্যাখ্যা দেওয়ার দায় কবি’র নেই। কবিতার অর্থ-ভাব-বিন্যাস সবকিছু বুঝে নেওয়ার দায় একান্তই পাঠকের।

আমি কিছুতেই এই মতের সাথে একমত নই! আমরা স্কুলে পড়ার সময় ঠাকুরের দুইলাইন, নজরুলের দুইলাইন, এরকম অনেক কবি’র কবিতাংশ ব্যাখ্যা করেছি। রাতজেগে মুখস্থ করেছি- ‘আলোচ্য লাইন দুটি বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের অমুক কবিতা থেকে চয়ন করা হয়েছে। এই কবিতায় কবি এই বলতে চেয়েছেন।

তারমানে কবিতার ব্যাখ্যা হয়। ব্যাখ্যাযোগ্য বলেই আমরা সেসব কবিতার ব্যাখ্যা করেছি। কবিতার ব্যাখ্যা নিয়ে প্রচুর বইও আছে, আছে প্রবন্ধ-নিবন্ধ-আলোচনাও! যদিও আজকাল কবি’রা শুধু কবিতাই লিখেন, কবিতা বিষয়ক ভাবনা, প্রবন্ধ, নিবন্ধ, আলোচনা কেউ আর লিখেন না। হয়তো লিখতে পারেনও না। যেসব কবি নিজের কবিতার ব্যখ্যা দিতে পারেন না বা দিতে চান না, তারা নিজেদের বক্তব্যে স্পষ্ট না। একটা ব্যাপার মাথায় রাখতে হবে কবিতা শুধুই ভাষা ও শব্দে ব্যবহার নয়। কবিতা ঋদ্ধ’ভাবের বহিঃপ্রকাশ!

আপনি একজন কবি, আপনি যদি আপনার ভাবের স্ফুরণ যথাযথভাবে পাঠকের মনে প্রোথিত করতে না পারেন সে দায় একান্তই আপনার; পাঠকের নয়। সমসাময়িক অনেক কবি’র কবিতায় দেখা যায় অহেতুক শব্দের ঝনঝনানি! বক্তব্যে স্পষ্টতা নেই, ভাবের পরিপূর্ণ বিকাশ নেই!

কবিতার শুরুটাই হচ্ছে ভাব। একটা ভাবকে আশ্রয় করে কবিতায় ভাষার প্রয়োগ হয়, ভাষার হাত ধরে শব্দের আগমন ঘটে, শব্দের শৃঙ্খলার জন্য বাক্য সুসজ্জিত হয়। বাক্যের বিন্যাসে আসে ছন্দ-তাল-লয়-পর্ব-অন্তমিল-বিন্যাসসহ আরও অনেক প্রকরণ ও ব্যাকরণগত দিকও!

শব্দেরপর শব্দ সাজালেই একটা বাক্য হয় না। যেমন- উদাস বাগান দুপুরের খাবার খাচ্ছে! একটা ছায়া একাএকা হেঁটে যাচ্ছে। আবার পরপর কিছু বাক্য লিখলেও একটা কবিতা হয় না। যেমন-

তালগাছে ধরেছে কাঁঠালের মুচি!
বাঘমামা ধান কাটে হাতে নিয়ে কাঁচি!
মেঘের মনখারাপ আকাশ কাঁদে!
পৃথিবী যায় না দেখা, যাও যদি চাঁদে!

আপনি যদি সহজ করে কঠিন কথা বলতে পারেন তবেই আপনি কবি। পাঠকের দায় নেই, অভিধান হাতে নিয়ে আপনার কবিতা পড়বে। পাঠকের দায় নেই আপনার উদ্ভট ভাবনার সাথে তাল মিলিয়ে সে উত্তরাধুনিক হবে। আপনি যদি নিজেই নিজের ভাবের স্বরূপ না জানেন, তবে পাঠক কিছুতেই আপনার ভাবের ব্যঞ্জনায় দোল খাবে না।

আসুন অহেতুক পাণ্ডিত্য আর অযথা কাঠিন্য পরিহার করে আমরা সাবলীলভাবে সাহিত্যচর্চা করি। লেখার জন্মই পাঠকের জন্য, সেই পাঠকই যদি আপনার লেখা না বুঝে তাহলে সেই লেখালেখিচর্চা নিরর্থক!

কালের লিখন(বহুমাত্রিক লেখক)

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

আরও অন্যান্য সংবাদ


টুইটর




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com