,

দুদকের শুভেচ্ছা দূত সাকিব আল হাসান

‘আপনি দেশের কোটি কোটি তরুণ-তরুণীর আইকন। তাই আপনাকে দুর্নীতি প্রতিরোধে কমিশনের শুভেচ্ছা দূত হিসেবে তরুণদের মাঝে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করছি।’ বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটার সাকিব আল হাসানকে উদ্দেশ্য করে সোমবার এ কথা বলেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ। সোমবার দুপুরে দুদক চেয়ারম্যানের বিশেষ আমন্ত্রণে রাজধানীর সেগুন বাগিচায় অবস্থিত দুদকের প্রধান কার্যালয়ে যান সব ফরমেটে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। কমিশনের চেয়ারম্যান সাকিব আল হাসানকে ক্রেস্ট এবং ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।

প্রিয় ক্রিকেটারের উদ্দেশ্যে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, ‘আপনারা-বিশেষ করে আপনি বাংলাদেশকে একটি বিশেষ মাত্রায় নিয়ে গেছেন। বিশ্বে বাংলাদেশকে মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। এজন্য আমরা গর্বিত। তরুণ-দেশকে কিছু দেওয়ার জন্য আপনার এখনই উত্তম সময়। আপনার কারণে যদি দেশের দশজন তরুণও সৎ জীবন যাপনে উদ্বুদ্ধ হয় সেটাও আমাদের বিশাল প্রাপ্তি।’ সাকিব আল হাসান দুদকের কার্যক্রমকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, ‘দুর্নীতি দমন কমিশনের যেকোনো কর্মসূচিতে আমি আসবো।’

দুদক চেয়ারম্যানের বক্তব্যের সাথে একমত পোষণ করে সাকিব আরো বলেন, ‘আমরাও চাই দুর্নীতিমুক্ত দেশ। আমরা যখন কোনো দেশের অভিবাসন দপ্তরে আমাদের পাসপোর্ট জমা দেব, তখন তারা যেন মনে করে বাংলাদেশের মানুষ দুর্নীতিমুক্ত এবং বিশ্বের রোল মডেল।’ এসময় দুদকের শুভেচ্ছা দূত হতেও সম্মতি জানান সাকিব আল হাসান।

দুদক চেয়ারম্যান বলেন, ‘দুর্নীতি আমাদের দেশের মানুষের জন্য একটি লজ্জার বিষয়। এই লজ্জা থেকে মুক্তির জন্যই দুর্নীতি দমন কমিশন কাজ করছে। কমিশন চেষ্টা করছে দুর্নীতি সংঘটিত হওয়ার আগেই তা প্রতিরোধ করতে। গত বছর দুর্নীতির সূচকে বাংলাদেশ দুই ধাপ এগিয়েছে। এর অর্থ হচ্ছে দুর্নীতির বিরুদ্ধে কিছু ইতিবাচক কার্যক্রম হচ্ছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘ঘুষ নিতে ঘুষখোর কর্মকর্তারা ভয় পাচ্ছেন। অনেক রাঘব-বোয়াল এখন দুদকের জালে। এক্ষেত্রে কমিশন ব্যক্তির পদ-পদবি, সামাজিক মর্যাদা, রাজনৈতিক পরিচয় কোনো কিছু দেখছে না। কমিশন শুধু দেখছে অভিযোগের ব্যাপকতা ও গুরুত্ব। আমরা বিশ্বের প্রতিটি মানুষকে জানাতে চাই আমরা দুর্নীতিগ্রস্ত দেশের নাগরিক নই।’

‘কমিশনকে ভয় পাবে শুধু দুর্নীতিপরায়ণ ব্যক্তিরা। সাধারণ মানুষ কমিশনকে ভয় পায় না, পাবেও না। একটি গবেষণায় দেখা গেছে ২১ শতকে বিশ্বের অর্থনীতির চালিকাশক্তির ১১টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ হবে অন্যতম,’ যোগ করেন দুদক চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, ‘আমরা আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য উত্তম ভবিষ্যৎ বিনির্মাণ করতে চাই। বিশ্বব্যাংক, এডিবি, জার্মান উন্নয়ন সংস্থা জিআইজেড, ইউএনডিপিসহ বিভিন্ন আর্ন্তজাতিক সংস্থা দুর্নীতি দমন কমিশনের সক্ষমতা বৃদ্ধিতে কাজ করছে এবং অনেকে কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করছে। আমরা সম্মিলিতভাবে দুর্নীতি দমন ও প্রতিরোধ করার চেষ্টা করছি।’

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

আরও অন্যান্য সংবাদ


টুইটর




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com