,

রিজার্ভের অর্থ চুরির ঘটনায় উপযুক্ত প্রমাণ দিতে না পারলে অর্থ ফেরত পাবে না বাংলাদেশ : এএমএলসি

ফিলিপাইনের আলোচিত ব্যবসায়ী ও ক্যাসিনো জাঙ্কেট কিম অং বাংলাদেশ ব্যাংকের চুরি যাওয়া অর্থের মধ্যে ৪৪ লাখ ডলার ফেরত দিয়েছেন। সোমবার দেশটির অ্যান্টি মানি লন্ডারিং কাউন্সিলের (এএমএলসি) কাছে এ অর্থ ফেরত দেওয়া হয়। মঙ্গলবার বাংলাদেশ ব্যাংকের অর্থ চুরি ও তা পাচারের ঘটনার তদন্তে থাকা ফিলিপাইনের সিনেটের ব্লু রিবন কমিটির ষষ্ঠ শুনানিতে এএমএলসির নির্বাহী পরিচালক জুলিয়া বাকে আবাদ এ তথ্য জানিয়েছেন।

রিজার্ভের অর্থ চুরির ঘটনায় উপযুক্ত তথ্য-প্রমাণ দিতে না পারলে কিংবা মামলা না করলে বাংলাদেশ অর্থ ফেরত পাবে না বলে জানিয়েছে ফিলিপিন্সের এন্টি মানি লন্ডারিং কাউন্সিল-এএমএলসি। দেশটির সিনেটের ব্লু রিবন কমিটির শুনানিতে একথা জানানো হয়েছে। এদিকে, চুরি হওয়া অর্থের আরো ৪৪ লাখ ডলার এএমএলসিকে ফেরত দিয়েছেন কিম অং। এ পর্যন্ত প্রায় ১ কোটি ডলার ফেরত দিলেন কিম অং। আরো ৫৪ লাখ ডলার ফেরত দেয়ার কথা রয়েছে তার। এর আগে গেলো ১২ই এপ্রিল অনুষ্ঠিত পঞ্চম দফার শুনানিতে উঠে আসে জড়িত আরো বেশ কয়েকজনের নাম।

এর মধ্যে রয়েছেন, আরসিবিসি’র জুপিটার শাখার সাবেক ব্যবস্থাপক মায়া দেগুইতো, অ্যাঞ্জেলা তোরেস, আরসিবিসি’র আঞ্চলিক বিপণন কর্মকর্তা ব্রিগিত্তে ক্যাপেনা ও নির্বাহী সহ-সভাপতি রাউল তান, আরসিবিসির চেয়ারম্যান লরেনজো তান, চীনা ব্যবসায়ী কিম অং, ওয়েক্যাং জু, উইলিয়াম গো এবং ক্যাসিনো অপারেটর দিং ও গাও। এছাড়া, বৈদেশিক মুদ্রা লেনদেনকারী প্রতিষ্ঠানের প্রেসিডেন্ট সালুদ বাতিস্তা ও তার স্বামী মাইকেল কনকন বাতিস্তার জড়িত থাকার কথাও উঠে আসে শুনানিতে। এদিকে, গতকাল বাংলাদেশের সিআইডি’র পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, রিজার্ভ চুরির ঘটনায় ১২ জন ফিলিপিন্স নাগরিক এবং ৮ জন শ্রীলঙ্কান নাগরিকের সম্পৃক্ততা রয়েছে।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

আরও অন্যান্য সংবাদ


টুইটর




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com