শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০:০৫ পূর্বাহ্ন

English Version
পুর নির্বাচনে বিজেপির রেকর্ড সংখ্যক ৫০০ মুসলিম প্রার্থী

পুর নির্বাচনে বিজেপির রেকর্ড সংখ্যক ৫০০ মুসলিম প্রার্থী



ভারতের গুজরাটে আজ পুর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আজ (রোববার) রাজ্যের আহমেদাবাদ, সুরাট, ভদোদরা, রাজকোট, ভাবনগর এবং জামনগর পুর করপোরেশনের ৫৭০ টি আসনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ২৯ নভেম্বর পুরসভা, জেলা পঞ্চায়েত এবং তালুকা পঞ্চায়েত নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। গুজরাটে পুর ও পঞ্চায়েত নির্বাচনে রেকর্ড সংখ্যক ৫০০ মুসলমান প্রার্থী দিয়েছে বিজেপি । গুজরাটের আহমেদাবাদে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি, বিজেপি প্রেসিডেন্ট অমিত শাহ, বিজেপি’র সিনিয়র নেতা এল কে আদবানীসহ ২০০০ বিশিষ্ট ব্যক্তি ভোটার রয়েছেন।

 

 আজ সকালে মুখ্যমন্ত্রী আনন্দিবেন প্যাটেল এবং বিজেপি’র সিনিয়র নেতা এল কে আদবানী তাদের নিজ নিজ ভোট কেন্দ্রে ভোট প্রদান করেন। বিহারে চরম পরাজয়ের পর দলের ভিতরে এবং বাইরে প্রবল সমালোচনার মুখে বিজেপি’র নীতি পরিবর্তনের ফলেই রেকর্ড সংখ্যক মুসলিম প্রার্থী দেয়া হয়েছে বলে গণমাধ্যমে আলোচিত হচ্ছে। পুর নির্বাচনে অবশ্য বিজেপি ২০১০ সালেও ৩০০ মুসলিম প্রার্থীকে টিকিট দিয়েছিল এবং এদের মধ্যে ২৫০ জনই জয়ী হয়েছিল।

 

বিজেপি’র মোকাবিলা করতে কংগ্রেসও অবশ্য পিছিয়ে নেই। তারা ৭০০ মুসলিম প্রার্থীকে এবার টিকিট দিয়েছে। গুজরাট প্রদেশ কংগ্রেসের প্রধান ভরত সিং সোলাঙ্কি বিজেপি’র পদক্ষেপ সম্পর্কে বলেছেন, ‘বিহারে নির্বাচনে হেরে তারা হতাশ হয়ে পড়েছে। তারা সমর্থনের ভিত হারানোর ভয়ে ভিন্ন রণনীতি গ্রহণ করেছে। যদিও তারা সমাজের সকল শ্রেণির আস্থা হারাচ্ছে।’

 

রাজ্যের বিজেপি মুখ্যমন্ত্রী আনন্দিবেন প্যাটেলের জন্য এ নির্বাচন খুব গুরুত্বপূর্ণ। কারণ নরেন্দ্র মোদি গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী থেকে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর মোদির অনুপস্থিতিতে এটাই বড় নির্বাচন। আনন্দিবেন প্যাটেলের সামনে তার নিজের ‘প্যাটেল’ সম্প্রদায় থেকে চ্যালেঞ্জ সৃষ্টি হয়েছে। গত চার মাস ধরে সরকারি চাকরি এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সংরক্ষণের দাবিতে আন্দোলন করছে প্যাটেল/পাটিদার সম্প্রদায়। বেশ কয়েকটি জায়গায় বিজেপিকে পাটিদার সম্প্রদায়ের বিরোধীতার মুখে পরতে হয়েছে। বিহার নির্বাচনে চরম পরাজয়ের পর যদি গুজরাটের পুর ও পঞ্চায়েত নির্বাচনেও আশানুরূপ ফল না হয় তাহলে মুখ্যমন্ত্রী আনন্দিবেন প্যাটেলের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ভাবমূর্তিও ধাক্কা খাবে বলে বিশ্লেষকরা মনে করছেন। প্রসঙ্গত, ২২ এবং ২৯ নভেম্বর ৫৬টি পুরসভা, ৩১ টি জেলা পঞ্চায়েত এবং ২৩০ টি তালুকা পঞ্চায়েতের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ফল প্রকাশ হবে ২ ডিসেম্বর।

Please Share This Post in Your Social Media




Leave a Reply



© 2018 Nobobarta । Privacy PolicyAbout usContact DMCA.com Protection Status
Design & Developed BY Nobobarta.com