,

পাকিস্তানের কোয়েটার সিভিক হাসপাতালে হামলায় কমপক্ষে ৫৫ জনের মৃত্যু, আহত শতাধিক

সকালে আদালতে যাওয়ার পথে আক্রান্ত হন বালুচিস্তান বার অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট বিলাল আনওয়ার কাসি। দ্রুত তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় কোয়েটার সিভিল হাসপাতালে। কিন্তু হিংসার থাবা থেকে রেহাই পায়নি হাসপাতালও। রক্তাক্ত বিলালকে নিয়ে হাসপাতালে গিয়েছিলেন তাঁর সহকর্মীরা। কোয়েটার সিভিক হাসপাতালে তখন আইনজীবী, পুলিশ এবং সাংবাদিকদের ভিড়। আচমকা বিস্ফোরণের শব্দে কেঁপে ওঠে হাসপাতাল। সেই ধাক্কা সামলানোর আগেই শুরু হয় গুলিবৃষ্টি।

ব্যস্ত হাসপাতালের ছবিটা মূহুর্তে বদলে যায়। বাতাসে বারুদের গন্ধ। চারপাশে হাহাকার,  ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিন্নভিন্ন রক্তাক্ত দেহ। বিস্ফোরণ এবং গুলিতে ঝাঁঝরা হাসপাতাল। মৃত এবং আহতদের অধিকাংশই আইনজীবী। হতাহতের তালিকায় রয়েছেন কয়েকজন পুলিশকর্মী এবং সাংবাদিকও। আহতদের কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। ফলে মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

হামলার পরই এলাকার নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে। হাসপাতাল ও সংলগ্ন এলাকা ঘিরে রেখেছে ফ্রন্টিয়ার কর্পসের বাহিনী। প্রাথমিক অনুমান, বিস্ফোরণ ঘটায় এক মানববোমা। এরপরই গুলি চালাতে শুরু করে দুই দুষ্কৃতী। আইনজীবী বিলালের ওপর হামলার সঙ্গে হাসপাতালের বিস্ফোরণে সম্পর্ক আছে কিনা, তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

আরও অন্যান্য সংবাদ


Udoy Samaj

টুইটর




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com