,

আইএসের বিরুদ্ধে বলিউডের গান যুদ্ধের হাতিয়ার বানাচ্ছে যৌথ বাহিনী

হিন্দি সিনেমার গান শুনিয়ে এবার সিরিয়ায় আইসিস দমনে নামল যৌথ বাহিনী। নতুন এই পদ্ধতি প্রয়োগ করায় ইতিমধ্যেই ভাল কাজ দিয়েছে বলে বাহিনীর তরফে জানা গিয়েছে। পাকিস্তানের এক গোয়েন্দা আধিকারিক মস্তিস্ক প্রসূত এই নয়া পদ্ধতিকে বর্তমানে যুদ্ধের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে যৌথ বাহিনী। ইসলামিক স্টেটের (আইএস) বিরুদ্ধে বৃটিশদের নতুন অস্ত্র বলিউড সিনেমার গান। বলিউডের গান দিয়ে আইএসের বিরুদ্ধে মনস্তাত্বিক যুদ্ধে নেমেছে বৃটিশ সৈন্যরা। এই খবর দিয়েছে বৃটিশ দৈনিক দ্য মিরর।

বৃটিশ সৈনিকরা মনস্তাত্বিক লড়াইয়ের এই বুদ্ধিটি পেয়েছে তাদের এক কর্মকর্তার কাছ থেকে, যিনি পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত। বৃটিশ সৈন্যরা বলছে, বলিউডের গান খুবই নাপছন্দ আইএস জঙ্গিদের। তারা এসব গানকে অনৈসলামিক বলে মনে করে। কীভাবে বলিউডের গান আইএস জঙ্গিদের কানে যায়? বৃটিশ সৈনিকরা আইএসের যোগাযোগ সিস্টেমে ঢুকে পড়ে। এরপর সেখানে বাজাতে থাকে বলিউডের গান। সেই গান শুনতে বাধ্য হয় জঙ্গিরা। হয় চরম বিরক্ত। শুরু হয় মনস্তাত্বিক লড়াই। 

সৈন্যরা জানাচ্ছে, তারা দুভাবে জঙ্গিদের ওপর চাপ প্রয়োগ করছে। একটি হলো তাদের বিরক্ত করা। অন্যটি, জঙ্গিদের এ কথা বুঝানো যে আমরা তোমাদের ওপর শক্তিশালী হচ্ছি। তোমাদের কাছাকাছিই আছি। দ্য মিরর পত্রিকা আরো জানাচ্ছে, বলিউডের গানে জঙ্গিরা দারুণভাবে অপমানিত বোধ করে। বৃটিশ সৈন্যরা এই কাজগুলো করছে লিবিয়ার সিতরেতে। জঙ্গিদের বিরক্ত করতে তারা আরো পদ্ধতি নিয়েছে। অকেজো গাড়িতে বলিউডের গান ছেড়ে দিয়ে তারা সরে পড়ে। 

জঙ্গিরা এই গানকে যন্ত্রণাদায়ক মনে করে। এই ‘মিউজিক উইপন’ বৃটিশদের অন্যভাবে সহযোগিতা করছে। জঙ্গিরা বিরক্ত হয়ে তাদের রেডিওতে অন্য জঙ্গিদের সঙ্গে যোগাযোগ করে বিরক্ত প্রকাশ করে। এর ফলে বৃটিশ সৈন্যরা জঙ্গিদের অবস্থান জেনে যায়। লিবিয়ায় বৃটিশ সৈন্যরা সরাসরি যুদ্ধ করছে না। তারা লিবিয়া সরকারের সৈন্যরা প্রশিক্ষণ দেয়। 

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

আরও অন্যান্য সংবাদ


টুইটর




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com