,

বিএ ডিগ্রি নেই, মোদির এমএ আছে, ওই ডিগ্রি ভুয়ো : কেজরিওয়াল

নয়া মোড় নিল ভারতে নরেন্দ্র মোদির ডিগ্রি বিতর্ক। অন্য এক নরেন্দ্র মোদির বিএ ডিগ্রিকে প্রধানমন্ত্রীর বলে চালানো হচ্ছে, দাবি করলেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল।  নরেন্দ্র মোদির এমএ ও বিএ ডিগ্রির তথ্য জানতে কেন্দ্রীয় তথ্য কমিশনের দ্বারস্থ হয়েছিলেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী কেজরিওয়াল। বহু ঝামেলার পরে গুজরাট বিশ্ববিদ্যালয় প্রধানমন্ত্রীর এমএ ডিগ্রির খোঁজ দিয়েছে। কিন্তু দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিএ ডিগ্রির সন্ধান পাওয়া যায়নি।
 
সংবাদমাধ্যমের একাংশে অবশ্য জনৈক নরেন্দ্র মোদির একটি বিএ ডিগ্রির ছবি প্রকাশিত হয়েছে। বুধবার কেজরিওয়াল দাবি করেছিলেন, ওই ডিগ্রি ভুয়ো। বৃহস্পতিবার কেজরিওয়াল জানান, আম আদমি পার্টির সদস্যেরা দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের রেকর্ড তন্নতন্ন করে খুঁজেছেন। কিন্তু ‘নরেন্দ্র দামোদরদাস মোদি’র কোনো খোঁজ মেলেনি। ১৯৭৫ সালে ‘‘নরেন্দ্র কুমার মহাবীর প্রসাদ মোদি’’ নামে এক জন ভর্তি হয়েছিলেন। তিনি রাজস্থানের আলওয়ারের বাসিন্দা মহাবীর প্রসাদ মোদির ছেলে। অন্য দিকে প্রধানমন্ত্রীর বাড়ি গুজরাটে।
 
কেজরিওয়ালের বক্তব্য, ‘‘প্রধানমন্ত্রী হওয়ার জন্য ডিগ্রির প্রয়োজন নেই। কিন্তু এ ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ উঠছে। কারণ, তিনি নির্বাচন কমিশনে দেওয়া হলফনামাতেও দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএ পাশ করার কথা বলেছেন।’’ সংবাদমাধ্যমের একাংশের দাবি, তারা ‘‘নরেন্দ্র কুমার মহাবীর প্রসাদ মোদি’’রও খোঁজ পেয়েছে। সেই মোদি জানিয়েছেন, তিনি দিল্লির শ্রীরাম কলেজের ছাত্র ছিলেন। বাবা তাকে প্রধানমন্ত্রীর মতোই নাম দেওয়ায় তিনি গর্বিত। চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন কেজরিওয়াল। বল এবার মোদির কোর্টে। নিজের বিএ ডিগ্রি প্রকাশ করতে পারলে তবেই জিততে পারেন তিনি।

 – সংবাদমাধ্যম

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

আরও অন্যান্য সংবাদ


টুইটর




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com