,

বাংলাদেশের সংবিধানে শিক্ষাকে ‘মৌলিক অধিকার’ হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয়নি: মোঃ আশরাফুল আলম সাগর

ইন্টারন্যাশনাল হিউম্যানরাইটস এন্ড ক্রাইম রিপোর্টার্স সোসাইটির চেয়ারম্যান মোঃ আশরাফুল আলম (সাগর) বলেন,শিক্ষা-খাত যাতে বাণিজ্য-খাতে না পরিনিত হয় সে বিষয়ে লক্ষ্য রাখতে হবে।তিনি বলেন আমাদের দেশে অনেকেরই একটি ভুল ধারনা রয়েছে।অনেকেই শিক্ষাকে মৌলিক অধিকারের একটি বলে উল্লেখ করে থাকেন।অথচ এটি সম্পূর্ণ একটি ভুল ধারনা।জাতিসংঘের সর্বজনীন মানবাধিকার ঘোষণাপত্র, ১৯৪৮-এর অনুচ্ছেদ ২৬ অনুসারে শিক্ষা একটি মৌলিক অধিকার হলেও বাংলাদেশ সংবিধানে এটিকে ‘মৌলিক অধিকার’ হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয়নি।অথচ শিক্ষা একটি জাতির উন্নয়নের ক্ষেত্রে প্রধান উপাদান।

 

কিন্তু স্বাধীনতার পর দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হওয়ার পরও আমাদের সংবিধানে শিক্ষাকে মৌলিক অধিকার হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয়নি। সংবিধানের দ্বিতীয় ভাগে রাষ্ট্র পরিচালনার জন্য শিক্ষাকে মৌলিক নীতিমালা হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে (অনুচ্ছেদ ১৫ ও ১৭)। তবে দ্বিতীয় ভাগে উল্লেখিত অনুচ্ছেদগুলো সরকারকে রাষ্ট্র পরিচালনার দিকনির্দেশনা দেয় মাত্র। এগুলো মৌলিক অধিকার হিসেবে স্বীকৃত নয়।তিনি আরও বলেন শিক্ষার্থীদের কথা না ভেবে অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান    শিক্ষাখাতকে বাণিজ্যে পরিণত করেছে।  শিক্ষাদানের সুযোগে ব্যাঙের ছাতার মতো গজিয়ে ওঠা এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ব্যাপক পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কখনোই শিক্ষার্থীদের স্বার্থ দেখে না। এরা আসলে শিক্ষা খাতকে বাণিজ্যে পরিণত করেছে।

 

নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে অনুমোদন বিহীন ভবন-কাম্পাস বাড়িয়ে চলছে।এতে শিক্ষার্থীদের শুধু মাত্র পুঁথিগত বিদ্যা দান করায় তারা ভালো রেজাল্ট করতে পারে ঠিকি কিন্তু ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে উঠতে পারেনা। আতিরিক্ত অর্থ আদায় সহ একাধিক অভিযোগে অভিযুক্ত এধরণের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি।ইন্টারন্যাশনাল হিউম্যানরাইটস এন্ড ক্রাইম রিপোর্টার্স সোসাইটির চেয়ারম্যান মোঃ আশরাফুল আলম (সাগর) বলেন, এ ধরনের প্রতিষ্ঠানের মালিকরা টাকাকেই প্রধান টার্গেট করে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যায়।তিনি বলেন,আমরা এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ শিক্ষা মন্ত্রী নুরুল নাহিদ কে জানিয়েছি।

 

অভিযোগগুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য বিষয়গুলির মধ্যে ছিল শিক্ষার্থীদের নিকট থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায়, নিয়মবহির্ভূত ভাবে ভবন-কাম্পাস-শাখা বৃদ্ধি।তিনি বলেন, শিক্ষা মন্ত্রী আমদেরকে আশস্থ করেছেন খুব শিগ্রি এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।এসময়  শিক্ষা মন্ত্রী নুরুল নাহিদ এর সাথে একান্ত কথোপকথনের সময়ে ইন্টারন্যাশনাল হিউম্যানরাইটস এন্ড ক্রাইম রিপোর্টার্স সোসাইটির চেয়ারম্যান মোঃ আশরাফুল আলম (সাগর)দেশের শীর্ষ স্থানীয় কয়েকটি বাণিজ্যিক মনোভাব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযোগ উথাপন করেন।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

আরও অন্যান্য সংবাদ


Udoy Samaj

টুইটর




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com