,

ঝিনাইদহে মেহেদীর ভাগ্যের চাকা ঘুরিয়ে দিয়েছে কবুতর খামার

ঝিনাইদহের মেহেদী নামে এক যুবক শখ থেকে জীবিকার সন্ধান পেয়েছেন । কবুতর পালন করে তিনি এখন স্বাবলম্বি হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন। ৪ বছর আগে নিছক শখের বশে একজোড়া কিং কবুতর কিনে পালন করতে থাকেন ঝিনাইদহ সদর উপজেলার পাগলাকানাই ইউনিয়নের কোরাপাড়া গ্রামের বেকার যুবক মেহেদি হাসান। কিছুদিন পালন করার পর একজোড়া বাচ্চা দেয়। বড় হলে সেই কবুতর জোড়া বিক্রি করেন ৬ হাজার টাকায়। তখন থেকেই মাথায় আসে বাণিজ্যিক ভাবে কবুতর পালন করার।

 

কবুতর কিনে বাড়ীর আঙ্গিনায় বাণিজ্যিকভাবে গড়ে তোলেন খামার। কবুতরের এই খামার মেহেদীর ভাগ্যের চাকা ঘুরিয়ে দিয়েছে। কবুতর বিক্রি করে তিনি জমি কিনে গড়েছেন পাকা বাড়ি। মেহেদী হাসান এখন বেকার যুবকদের অনুপ্রেরণা। প্রতিদিনই দেশের দূর-দূরান্ত থেকে মানুষ আসছে মেহেদী হাসানের বাড়ীতে। তিনি জানান, স্ত্রী শারমিন হাসানের সহযোগীতায় বাড়ীর আঙ্গিনায় গড়ে তুলেছেন প্রিজন ফার্ম। তার খামারে ৫০ প্রজাতির বিদেশি কবুতর রয়েছে। এর মধ্যে ৪২ হাজার টাকা জোড়া মূল্যের ইয়োলো বোখরা, ১০ হাজার টাকা মূল্যের মডেনা ব¬ু কিং, ম্যাগপাই ও আওল এবং ৬ হাজার টাকা মূল্যের বিউটি হুমার রয়েছে।

 

আছে ৬ থেকে ২০ হাজার টাকা মূল্যের পাকিস্থানি ব¬ু সিরাজি, কালো কিং, লাল কিং, হলুদ কিং, হোয়াইট কিং, সাটিং, শ্যালো, নানপারভিন, সিংহ ও হাইপিলার। ৬ হাজার টাকা মূল্যের অস্ট্রেলিয়ার কিং। ২ হাজার টাকা মূল্যের ভারতীয় বোম্বাই ও লোটন এবং দেশি সোয়াচন্দন। মেহেদি হাসান জানান, ২০ হাজার টাকা খরচ করে এক জোড়া বিদেশি কবুতর পুষলে বছরে সব খরচ বাদ দিয়ে ৩০ হাজার টাকা লাভ থাকে। ৪ বছর খামারে উৎপাদিত বাচ্চা ও কবুতর বিক্রি করে উলে¬খযোগ্য আর্থিক পরিবর্তন আনতে পেরেছেন মেহেদী।

 

প্রতিবেশী স্কুল ছাত্র সাব্বির হোসেন জানান, মেহেদি হাসানের কাছ থেকে কবুতর কিনে লালন-পালন করে বিক্রি করে নিজের খরচ চালাচ্ছেন তিনি। এ ব্যাপারে ঝিনাইদহ জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা: কানাই লাল স্বর্ণকার জানান, মেহেদি হাসান বিদেশী বিভিন্ন জাতের কবুতর পালন করে আজ স্বাবলম্বী। যেকোন প্রকার সমস্যা নিয়ে সে আসলে তাকে সঠিক পরামর্শ দেওয়া হয়।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

আরও অন্যান্য সংবাদ


টুইটর




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com