,

হবিগঞ্জে তীব্র শীত ও ঘন কুয়াশায় স্থবির হয়ে পড়েছে জনজীবন-কয়েকদিনের ঠান্ডায় হবিগঞ্জ জেলায় ৪ শিশু ও এক বৃদ্ধের মৃত্যু

শেখ মোহাম্মদ তানভীর হোসেন : হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি#  হঠাৎ করে বৃষ্টির পর শুরু হয়েছে শৈত্যপ্রবাহ। তীব্র শীত ও ঘন কুয়াশায় জনজীবন স্থবির হয়ে পড়েছে। শীতের কারণে সর্দি, কাশি, ডায়রিয়া, নিউমোনিয়া, হাঁপানিসহ ঠান্ডাজনিত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। গতকাল শীতের প্রকোপে ঠান্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে জেলায় ৪ নবজাতকসহ এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। সকালবেলা ও রাতে তুষারাচ্ছন্ন বাতাস আর ঘন কুয়াশাসহ হাড় কাঁপানো শীতে জবুথবু হয়ে পড়েছে জেলার মানুষ। মজুর পরিবারের মধ্য বয়সী ও বৃদ্ধরা কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। ঘন কুয়াশার কারণে যাবাহনগুলোকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত হেডলাইট জ্বালিয়ে চলাচল করতে দেখা গেছে। শীতের প্রকোপে অভাবী মানুষের জীবন বাঁচানোই দায় হয়ে পড়েছে। শিশু ও বৃদ্ধরা ঠান্ডাজনিত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। এতে সর্দি, কাশি ও হাঁপানিজনিত রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। গত দুই দিনের ঠান্ডায় জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে শতাধিক রোগী হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়। এর মাঝে গতকাল হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ২ নবজাতক, চুনারুঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১ নবজাতক, মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১ নবজাতক ও রমজান আলী (৬০) নামে এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে।
গতকাল সরেজমিনে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, বিভিন্ন ওয়ার্ডে তিল ধারণের ঠাঁই নেই। অনেক রোগী সিট না পেয়ে মেঝেতে পড়ে রয়েছে। শিশু ওয়ার্ডে রোগীদের উপচেপড়া ভিড় দেখা গেছে। রোগীদের প্রচন্ড চাপের কারণে সেবা দিতে ডাক্তার-নার্সরা হিমশিম খাচ্ছেন। রোগীরা অভিযোগ করেন- একমাত্র খাবার স্যালাইন ছাড়া হাসপাতাল থেকে কিছুই দেয়া হচ্ছে না। সব ধরনের ঔষধ বাইর থেকে কিনে আনতে হয়। এ ব্যাপারে মেডিকেল অফিসার ডাঃ দেবাশীষ দাস জানান, ভয়ের কিছু নেই। ঠান্ডা কমলেই সব ঠিক হয়ে যাবে। তবে শিশুদের ক্ষেত্রে সাবধানতা অবলম্বনের পরামর্শ দেন তিনি।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন

আরও অন্যান্য সংবাদ


Nobobarta on Twitter




Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com